The need of the help of Immunology to overcome the impediments of allopathy and homeopathy to cure obstinate non-communicable incurable diseases.

The use of homeopathic medicines in curing non-communicable diseases can be explained by the use of the theory of immunology only which could not be done only by the use of the doctrine of homeopathy “like cures like or Similia Similibus Curantur”. If we could assist the system of homeopathy by the concept of “antigen-antibody” of immunology, it would have been easier for the ancient and modern schools of medicine to join hands in treating diseases by the attenuated forms of pathogenetic natural substances together with bacterial endotoxins which was developed by Jules T Freund (vide Freund’s complete and incomplete adjuvants). The followers of modern medicine failed to accept the concept of immunostimulation by the use of adjuvants due to the failure to apply the adjuvants by the injectable form, which was successful for the animal model. If the oral use of the adjuvants used in homeopathy could be made acceptable to the followers of modern medicine, the impediments of the concept of immunomodulation due to the failure of the application of the concept of immunostimulation by injectable form of adjuvants could have been overcome. Instead of using the artificially developed cytokines, if the cytokines could have been developed in human body by the application of attenuated adjuvants of homeopathy, the adverse reactions caused by the application of injectable form of cytokines in treating various viral diseases could have been eliminated with success in curing viral diseases like hepatitis, etc. This concept of homeopathic use of attenuated natural pathogenetic drugs from the early stage of diseases before the immune system has suffered great amount of damage caused by powerful immuno-suppressive drugs used in allopathy, it would have helped the scientists of modern medicine to avoid various therapeutic approaches which is causing diseases to be more incurable and economically more costly to be treated and making people less productive due to repeated and prolonged diseases.

Advertisements

Homeopathy Can Change The Global Economy (P-2)

Homeopathy can prevent and cure the following Auto-immune Diseases.


Auto-immune diseases are produced when bacteria and viruses enter into human body and take shelter in various organs inside cells. When they accumulate in large numbers, the immune system produce antibodies to attack and destroy them. During this process of action, they by mistake produce antibodies against the cells inside which the viruses have taken shelter. These antibodies destroy the viruses together with the cells. This can take place against the Kidneys and cause a disease named Glomerulonephritis. This disease is very commonly found and the only treatment is using steroids named Prednisolone injection, which slowly damages the kidneys and the next step is dialysis and kidney transplantation. These are all expensive treatments and involve a huge amount of money for the people as well as for the nation.

The following is a list of Auto-immune diseases which are caused by the viral attacks, which damages various organs and the conventional treatment is almost the same, that is to use the steroids to suppress or make the immune system inactive so that the body cannot produce the antibodies to destroy the viruses as well as the cells giving shelter to the viruses. These Auto-immune diseases are the majority of the diseases called non-communicable diseases, which make millions of people disabled and destroy their capability to contribute to the economy of the nations of the world. Some of the Auto-immune diseases are:

Autoimmune thrombocytopenic purpura, Autoimmune urticaria, Autoimmune pancreatitis, Autoimmune hepatitis, Autoimmune hemolytic anemia, Autoimmune aplastic anemia, Ankylosing Spondylitis, Alopecia areata, Berger’s disease, Diabetes mellitus type 1, Discoid lupus erythematosus, Celiac disease, Glomerulonephritis, Gastritis, Myasthenia gravis, Rheumatic fever, Rheumatoid arthritis, Vitiligo, Psoriatic arthritis, Psoriasis, Systemic Lupus erythematosus (SLE), etc.

 

If Homeopathic treatment is applied for all these diseases before the viruses can enter deep into the cells and excite the immune system to make wrong decision to destroy the cells containing the viruses, that is before the onset of the process of autoimmunity, (which means the immune system acts against one’s own self), there would have been no occurrence of so many diseases and no loss of so many lives and consequently no loss of national and global exchequer.

To achieve this goal to combat Auto-immune diseases, the homeopathic practitioners should not feel disturbed by the cumbersome names of the diseases. We shall have to remember only few aspects, such as:

(1) The Auto-immune diseases are caused by repeated suppression of symptoms like fever, pain, etc. from our early life by the application of anti-pyretic (anti-fever), anti-allergic, anti-diarrheal, medicines of conventional (allopathic) system of medicine, which prevents the killing of bacteria and viruses.

(2) Suppression of skin diseases like eczema, dandruff, etc. by non-steroidal or steroidal ointments; ear, nose and eye drops, etc. which stop the process of elimination of toxic substances.

(3) Surgical removal of organs like tonsils, appendix, gall bladder, etc. which damages normal functioning of the immune system.

(4) Use of cosmetics for screening sunrays and help anti-aging, which destroys saprophytes (healthy bacteria).

Above all, all the diseases from the early life should be treated homeopathically and it possible, would be parents should be treated, even at the time of pregnancy, by homeopathy to prevent bacteria and viruses from entering into the fetus by crossing the placental barrier.

For those, who are already attacked with Auto-immunity, can be treated and cured by homeopathy by selecting medicines which arouses the reactive vitality of the system to bring the suppressed  symptoms to the surface (as Dr. H. C Allen wrote in his book “ The Materia Medica Of Nosodes”), and to apply homeopathic medicine based on the new symptoms.

In this way, we can achieve the goal of keeping the mischievous micro-organisms from entering and establishing their domain inside our healthy human body, to confuse our intelligent immune system to take wrong decisions to generate antibodies to destroy our vital cells instead of viruses.

Homeopathy Can Change The Global Economy (p-1).

There is an old adage, “A stitch in time saves nine.”   When a child suffers from allergic symptoms, if we apply anti allergic drugs, the symptoms subside but the intensity of diseases increase day by day and we ultimately take the help of steroids, which damages the capacity of the immune system to fight bacteria and viruses and their toxic products. This helps the children to be attacked with more virulent viruses and become store house of toxic deposits. This leads our children towards more severe diseases and end up in cancerous diseases.

Instead of using anti allergic drugs, if we use homeopathic medicines which help the liver to digest the toxins and throw them off through the excretory system, the toxins cannot reach the skin to produce allergic symptoms and child will grow up with a healthy immune system to fight with all types of bacteria and viruses which lead us towards cancer by changing the DNA of healthy human cells.
If we, the homeopathic practitioners can convince the people about this simple beneficial aspect of homeopathy, the modern hospitals would not be crowded with sick people all over the world.
The suppression of the toxins by the help of anti allergic drugs compels our physiological system to be saturated with toxic substances which cause the kidneys to produce renin  to excite the heart to raise the blood pressure of human body to help increase the flow of blood through the kidneys and to get free from toxic products.

At that time, if we use Rauwolfia Serpentina, Berberis Vulgaris, Thalaspi bursa pastoris, etc. homeopathic drugs, the blood will be free from toxic substances and the kidneys will stop production of renin and the blood pressure will become normal (vide internet for Renin-angiotensin system).

But according to the conventional medicine, medicines are used for vasodilation, ACE inhibition, calcium channel blocking, etc. which does not help to throw off the toxin like homeopathic medication and cause damage to the kidneys.This leads the people to go for the expensive system of treatment called hemodialysis. When innocent people start taking anti-hypertensive drugs for decreasing blood pressure, they do not know the ultimate goal of kidney failure and the painful expensive process of hemodialysis.

This is a sheer process of causing damage to the national economy and productivity of human population (To be continued).

Understanding the Superiority of Homeopathy over Allopathic System of Medicine to help Homeopathic Community to Overcome the Inferiority Complex.

The offensive role of allopathy should be clearly explained to make people really understand the need of homeopathy to make people free from diseases. If we do not understand how allopathy actually cause harm to human body by giving quick relief from sufferings from diseases. General people are not given this information which is deceiving people and make them inclined towards allopathy. The followers of homeopathy are trying to play a role of amicable and friendly with the followers of allopathic system. They do not want to express the harmful effects of allopathic system to the general mass of people. This is because the allopathic community has made the homeopathic community demoralized by some aspects like the non existence of medicinal substance in ultra diluted homeopathic medicines. This theory has made the homeopathic community believe that they are actually deceiving people by giving them placebo i.e. plain water without any medicine, which means that in the name of treatment, the homeopathic doctors are actually cheating people. This inferiority complex has made homeopathic doctors to think themselves as criminals and a low grade of people without the sense of morality.

Now we are going to expose certain facts about medical science which will help the homeopathic doctors with a new feeling of confidence about the true evaluation of the beneficial role of homeopathy. For this, we have to know something about the science of immunology. According to this science, our body is kept clean from bacteria and viruses and other toxic substances, which are the major cause of diseases, by a substance called cytokines. There are many types of cytokines, each one has a especial type of function. These cytokines exist in our body in very microscopic small size, and in a very diluted form called picomolar (10-12) concentrations. These cytokines become more powerful and active in greater dilutions. From this information we come to know that, when the scientists tried to apply these cytokines in high concentration, the function of these cytokines became very toxic and damaged organs like liver, etc. In case of hepatitis, when the cytokine named interferon was applied, the hepatitis virus was found to be destroyed but the liver was damaged causing cirrhosis of liver. This caused the liver specialists to stop the use of interferon in Bangladesh. Like this we can see many instances where increase in dilution caused the effectiveness of medicinal substances rather than the increase of concentration. This approves the beneficial effect of using phytotoxins (toxin from plants) in homeopathic drugs like the use of Podophylum in high dilution at a greater intensity than the concentrated form in the mother tincture, not preferred in homeopathy.

The brief summery of the new concept of Homeopathic Immunomodulation.

Understanding homeopathy in the light of immunology, to develop an alternative medicinal formula, to overcome the impediments of immunology and homeopathy, to combat diseases due to immunological disorders.
(For more than a century, the homeopaths tried to establish homeopathy as scientific method to cure diseases, but failed to do so. The doctrines of organan were based on some hypothetical concepts which could not be explained on a scientific basis. In order to establish homeopathy on a more dependable ground for the benefit of suffering humanity, we decided to take a different approach which is going to be explained in this text.

An alternative approach to explain homeopathy in the light of immunology
to make it acceptable to the followers of modern allopathic system of medicine and to show them how homeopathy can be used in the fields where modern allopathic medications like cytokines, failed to achieve their desired goals to combat diseases caused by immunological disorders. This article was presented at the four international seminars held in Bangladesh in the year 2000).

Efforts to increase the capacity of the immune system, to keep human body free from diseases by the method of detoxification, started from the development of the science of immunology. The bone marrow, which produces blood cells, is the source of that capacity of the immune system to combat external invaders. Due to various reasons, especially due to lack of exposure to the Ultra violet rays from solar radiation, the bone marrow gets weaker and produces weak and inefficient blood cells like the farm animals. No medicine has yet been developed in any system of medicine, which can make the bone marrow healthier and stronger to generate healthy and efficient blood cells to fight foreign micro-organisms.
The failure on the part of the scientists to increase the efficiency of bone marrow to produce healthy blood cells, has compelled them to develop the system of controlling the receptors, enzymes, ion-channels
and the carrier molecules with the help of medicines called channel blockers, inhibitors, etc. By controlling these bio-chemical processes in the cells, with the help of drugs, majority of the diseases caused by
immunological disorders like hypertension, hyperacidity, gastric ulcer, allergy, etc. arebeing controlled now a days.

But this method of palliation is short acting and needs regular use of drugs. These drugs do not help to detoxify the human body but keep the disease symptoms under control and help people to lead an apparently
normal life. But a careful study shows that the intensity of the diseases go on increasing which require to increase the dosage of drugs. In the long run, due to controlling various natural processes of the physiological system by external means of medication, the complexity of the diseases go on increasing and various organs like kidney, liver, heart, etc. gradually get damaged and ultimately stop functioning properly. But people are happy with these palliative drugs due to the prompt relief they get from this mode of medication and also due to their ignorance about the damage which is being done to the immune system by this mode of treatment, which is the root cause of all the malignant incurable diseases from cold allergy, asthma, diabetes, cancer, etc. called diseases due to immunological disorders.

But if we consider the curative action obtained by the use of the naturopathic medicines in the systems of Ayurveda (Herbal) & homeopathic medicine, we can find that the curative processes are long lasting which
keep the human body free from the burden of toxins and people enjoy much more healthier disease free life without the tendency of getting attacked with the malignant and deadly diseases mentioned above. From our observation, it appears that the curative processes rendered by those naturopathic systems might have acted like the systems proved by the scientist Dr. Jules T. Freund in the year 1942, who used the adjuvants in the injectable form to obtain the process of immunostimulation in animal models but was found to be highly toxic for human use (vide internet for “Freund’s complete adjuvant”). Freund’s system of immunostimulation or immunomodulation could not be used extensively on human body due to the failure to develop adjuvants suitable for parenteral (injectable) use for human being. Experiments were carried out by the scientists, to find adjuvants suitable for parenteral (injectable) use for a period of 20 years and was then abandoned forever. The failure to utilize such an ideal method of cure by detoxification by modulating the immune system with the help of natural toxic substances, stopped the way of utilizing the toxic substances as modulators of the T and B-cells, to take measures to identify and eliminate the disease producing toxins called antigens in the language of immunology.

But the scientists found out substances called cytokines produced in human body to control the immune system. These cytokines are now produced in-vitro and used for controlling immune system. But after
clinical trials, they are found to be toxic and almost failed to do the task of immunomodulation to detoxify and make human body disease free, like the naturally generated cytokines produced by the immune system in-vivo in case of any attack from micro-organisms. Our attempt is to compare the ancient oral use of toxic drugs from plants, minerals, animals and bacterial origin with the use of Freund’s complete adjuvant.
If the oral use of toxic drugs of naturopathic systems can be proved to be an alternative to the injectable method of Freund’s complete adjuvant for the process of immunopotentiation, the impediments of
modern medicine to use the ideal method of cure by the help of detoxification could be overcome. This effort to give a scientific explanation of the ancient systems of naturopathy, will help to avoid the use of palliative and immunosuppressive drugs and will stop the process of gradual degradation of the immune system leading towards the immuno-compromised condition of human body prone to be attacked with viruses like HIV, bird flu, mad cow disease and other malignant diseases and will save billions of dollars in health care research globally.

In the ancient times, all the systems of medicine, including the allopathic system, used the toxic substances obtained from natural sources of plants, minerals, chemicals, animals and bacterial origin (vide the book
of Materia Medica by William Hale-White 1935 edition). But they did not have the clear conception about how those natural toxic substances helped to cure diseases, due to their lack of knowledge about immunology. In order to increase the curative effect, scientists of conventional medicine tried to isolate the alkaloids from plants which increased the toxic effects of the drugs further, which produced medicinal aggravation called drug disease, which was reduced by the system of attenuation developed by homeopathy. With the discovery of bacteria and antibiotics, the followers of germ theory became more confident about their concept over the concept of the followers of naturopathy. Simultaneously, a new branch of medicine named immunology was developed which discovered the systems of vaccination. This brought a great success for the followers of germ theory. But the scientists of modern medicine still faced great hindrance to deal with the non-infections diseases, which consisted of majority of the diseases from allergy to cancer. Scientists found out that the immune system, which helped to keep the human body free from antigens or toxins to maintain healthy life, sometimes failed to act with accuracy.

The over or under activity of the immune system developed various illnesses caused by reactions like (i) hypersensitivity, (ii) Cytotoxicity, (iii) Immune complexity, (iv) autoimmunity & (v) immunodeficiency. The bulk of non-infectious diseases are caused by these five reactions of immune system, which we are going to explain in brief. The white blood cells are known to the common people as the soldiers of defense mechanism, which keep the human body free from foreign invaders with their act of scavenging. These white blood cells (WBC) possess an inherent capacity to differentiate and identify the toxic and non-toxic ingredients of human body. While destroying the toxic ingredients, they sometimes excite the healthy cells to produce substances called histamine which cause allergy, this reaction is called Hypersensitivity reaction Sometimes they destroy healthy cells and cause anemia, that reaction is called cytotoxic reaction. Sometimes they combine with toxic substances called immune complex substances, which damage adjacent healthy tissues and cause diseases like eczema, psoriasis, leprosy, hepatitis, rheumatoid arthritis, liver cirrhosis and even cancer, etc., which is called Immune complex reaction. Sometimes the army of defense system makes mistakes and begins to destroy substances like insulin and cause diabetes and other deadly diseases like SLE, glomerulonephritis, infertility, etc. This reaction is called autoimmunity. The fifth reaction is caused when
the defense mechanism becomes totally inactive allows the invaders to enter into the human body and roam about freely and render the person subjected to the continuous processes of diseases beginning from cold
allergy to cancer, this reaction is called immunodeficiency.

To handle the diseases caused by these five reactions called immunological disorders, scientists developed anti-allergic drugs and also drugs called steroid etc., to suppress the immune system to stop the over-activity of the defense forces. To increase the under activity called immunodeficiency, they developed immunoglobulin (IG) to apply from external sources, which is very expensive and not very much accurate in activity.

The other method is called bone marrow transplantation which is both expensive and risky. This failure on the part of the scientists of conventional medicine to control the immunological disorders by the method of detoxification, could be overcome by the oral application of natural toxic substances as is done in the naturopathic systems of medicine together with the oral use of the products of bacterial endotoxins used in homeopathy. This mode of application of combined form of antigenic (toxic) substances resembles the system of application of Freund’s complete adjuvant (toxic natural substances with the bacterial product). The difference lies only in the mode of administration. The naturopathic systems like Ayurveda (herbal) system do not use the bacterial products, which is only done in homeopathy. This similarity of alternative mode of application of the Freund’s complete adjuvant was observed by us in the year 1973 and we named the
homeopathic use of natural toxins with the bacterial products as combined oral micro-immunotherapy (COMIT) previously named as Dynamised Micro-immunotherapy by Dr. O. A. Julian. But this concept of immunomodulation probably acted in the humoral and cellular level and could not fulfill the task of bone marrow stimulation, which is the actual site of origin of immunological activity, where the products used as adjuvants could not reach to fulfill the purpose of rectification of the controlling center of the immune mechanism. In our research, this point was taken into consideration and the modified concept of oral immunomodulation based on Freund’s concept of immunomodulation with the help of adjuvants was modified by making the use of radioactive products like Uranium and Radium in the minute dose together with the natural herbal and the bacterial products simultaneously. This made the breakthrough in achieving the effect of bone marrow stimulation which could not be achieved by the use of natural herbal and bacterial products alone. The use of radioactive products like Uranium and Radium in the minute dose together with the natural and the bacterial products simultaneously as is done in homeopathy, makes it more competent in curing diseases by the immune system than any other systems of medicine. This makes homeopathy superior to the system of modern conventional medicine, which failed to achieve its desired goal of immunomodulation with the help of cytokines (vide internet). This is possible by homeopathy because it can achieve the effect of bone marrow stimulation. The use of various toxic substances in the attenuated oral formmakes homeopathy effective in modulating the immune system in the humoral,cellular and medullar levels i.e. antibody mediated, cell mediated and bone marrow (stem cell) mediated immune reactions respectively.The use of radioactive products like Uranium and Radium for the purpose of bone marrow stimulation was made more effective and with less medicinal aggravation by the use of two other homeopathic medicines named X-ray and Sol, both developed by Dr. Bernhardt Fincke MD (vide A Dictionary of Practical Materia Medica by Dr. John Henry Clarke MD).

The systematic use of the above mentioned homeopathic medicines based on the concept of homeopathic symptomatology together with the concept of immunomodulation in immunology for the purpose of total annihilation of the genetically inherited toxicity called miasmatic defects in classical homeopathy, gave us tremendous success in curing diseases due to immunological disorders, which is beyond the imagination to be achieved by classical homeopathy alone.

Why Immunological Principle Is Necessary To Enrich Homeopathic Principle and Vice Versa.

The purpose of these article is to make the homeopathic community aware about the concept of homeopathic cure in the light of immunology, which was initiated by Dr. O A Julian of France, who died in 1984. After his demise, nobody came forward to take the initiative of explaining homeopathic cure in the light of “Dynamized Micro-immunotherapy” or modern immunology.

I believe, this scientific explanation of the principle of homeopathy postulated by the dictum “Similia Similibus Curantur” will help the followers of modern medicine to realize the concept of homeopathy for which they are trying to reach the goal of stimulating the immune system to destroy the living and non-living toxins by the help of cytokines called interferons and interleukins.

It is a matter of great tragedy that, the scientists of modern medicine could not accept the approach of oral application as they did in case of polio vaccine to avoid the harmful effect of injectable form of polio vaccine, which caused serious paralytic effect for millions of children worldwide.

I believe, my effort to create awareness among the followers of conventional medicine regarding the oral application of diluted natural toxins by the system of selection by symptom analogy adopted in homeopathy, will help their conscience to be aroused to understand the detrimental effect of using cytokines in massive doses by the parenteral  or injectable route.

This minor change of their decision will help save billions of people from the destructive effect of using the alternative approach of using immuno-suppressive drugs instead of immunomodulation or

How To Boost Our Immune System To Fight Diseases.

Perhaps you are not aware of the fact that, our body is gradually losing its capacity to fight diseases. The scientists of modern medicine developed a kind of substance named cytokines to increase that capacity but failed to achieve success.

Due to this failure, we are gradually proceeding towards a serious physical condition when our body cannot maintain its purity and become full of toxic substances. In that situation the healthy human cells are converted into harmful cells called malignant cells or cancer cells. These harmful cells slowly kill us and no medicine can resist that process of death. We have developed a new system
called Homeomodulation which can resist the process of malignancy successfully, which we are going to narrate in detail.

When people get sick, they go to the doctors and take medicine according to his suggestions. But people never bother to know the complicated processes which cause the diseases. We are going to narrate the facts behind the real cause of most of the obstinate diseases which we do not know. We shall show that the real causes are very much different from what we generally know about the cause of the diseases. To understand the actual cause of disease, we shall have to know something about a science called Immunology which deals with the immune system.

In human body this is a defense mechanism which protects us from the attack of foreign microorganisms called bacteria and viruses. These foreign invaders enter into our body to have their food and shelter and for reproduction. During this process, they produce some toxic substances which disturb the normal functioning of the organs like liver, kidney, etc. of our body. A human body cannot tolerate this pollution and begin to destroy the toxins. Thus a fight starts inside our body, which creates some uneasy feelings like fever, pain, headache, diarrhea etc. We call these feelings dis-ease.

If somebody has a strong and efficient immune system, the duration of this fight will last for a short time or will be negligible. So a man with a healthy immune system will never experience diseased condition in his life time. The efficiency of immune system depends on the capacity of the white blood cells to destroy the foreign invaders. These white blood cells are generated inside the bone marrow. If a man has healthy bone marrow, his white blood cells will be healthy and capable of destroying the foreign invaders without a prolonged war. So to keep a man healthy, the scientists should have something which can penetrate the bone and can make the bone marrow healthy.
But there is not a single substance which can do this job. Yes, no medical
scientist has yet been successful to identify and develop a substance which can
perform this great task of stimulating the bone marrow which is the root of the
origin of the immune system.

The failure to develop such a substance has compelled the scientists to adopt an
alternative way to keep the painful symptoms of disease under control by the
application of medicines called palliative drugs, which does not eliminate the
cause of the disease i.e. the microorganisms. Rather it damages the strength of
the immune system further helping more powerful microorganisms to enter and
create more severe diseases. Based on this information, we are going to explain how we can avoid this process of treating diseases, without causing any harm to the human body.

I, as the researcher in alternative medicine and immunology, have been observing the progress of conventional allopathic medicine and came to learn about the impediments caused by the mode of application of the cytokines. Instead of, oral application of substances which can stimulate the bone marrow to produce the correct type of blood to generate the exact quantity of cytokines required to fight and destroy the exact type of microorganisms, the scientists of immunotherapy applied an externally produced cytokine in a massive dose by the parenteral (injectable) route which caused the damaged to the existing capacity of the immune system, instead of rejuvenating it.Considering these facts, we began to search some natural substances which can act as oral adjuvants to generate the correct type of cytokines by the immune system without causing the detrimental

effect like the artificially produced cytokines. This search began in the year
1983 and we could select and identify few substances which can play the role of
alternative to the injectable form of immunotherapy. This helped us to make a
breakthrough in curing most obstinate incurable diseases which could have never been attained in the history of medicine. About the complete findings, we shall be sharing with the fellow researchers in near future.

পুনরালোচনা

পুনরালোচনা :

(ক) বিজ্ঞানী ফ্রয়েন্ড কর্তৃক উদ্ভাবিত পদ্ধতির আলোকে প্রাচীন চিকিত্সা পদ্ধতিসমূহের মূল্যায়নই পারে চিকিত্সা বিজ্ঞানের অগ্রগতির পথের বাধা অতিক্রম করতে : আদিকাল থেকেই বিবিধ টক্সিক বা বিষাক্ত ভেষজ পদার্থ মুখে খাইয়ে রোগের চিকিত্সা চলে আসছিল। যে ধুতুরা বিষ মানুষকে উন্মাদ করতে পারে, সেই ধুতুরা দিয়ে উন্মাদ রোগীকে আরোগ্য করা হত আয়ূর্বেদ শাস্ত্রে। ঠিক তেমনি ভাবে ইউনানী, হোমিওপ্যাথি এবং এ্যালোপ্যাথিতে ব্যবহৃত শত শত টক্সিক বা বিষাক্ত প্রাকৃতিক উপাদানকে মুখে খাইয়ে কিভাবে যে রোগ আরোগ্য হত তার কোন সঠিক ব্যাখ্যা প্রাচীনপন্থী এবং আধুনিক এ্যালোপ্যাথিক চিকিত্সা বিজ্ঞানীরাও দিতে সক্ষম হননি।
১৯৪২ সালে জুলস, টি, ফ্রয়েন্ড নামে একজন আমেরিকান অণুজীববিজ্ঞানী জনতুর দেহে কিছু রাসায়নিক পদার্থের সঙ্গে যক্ষ্মা রোগের জীবাণু মিশিয়ে ইনজেকশনের দ্বারা প্রয়োগ করে দেখলেন যে এর ফলে ঐ জনতুর দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায় এবং জন্তুটি রোগমুক্ত হয়। তিনি ঐ মিশ্র পদার্থের নাম দিলেন এ্যাডজুভ্যান্ট বা উদ্দীপক এবং রোগপ্রতিরোধ শক্তির বৃদ্ধিকে ইমিউনোপোটেনসিয়েশন বলে আখ্যায়িত করেন, যাকে বর্তমানে ইমিউনোমডুলেশন বা রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার নিয়ন্ত্রণ বলে আখ্যায়িত করা হচ্ছে।
তার এই প্রক্রিয়া মানবজাতির দেহে প্রয়োগ করে রোগ আরোগ্য করার চেষ্টা চলতে থাকে। কিন্তু জন্তুর দেহে প্রয়োগ করা সম্ভব হলেও ইনজেকশনের দ্বারা মানুষের দেহে যে কোন টক্সিক বা বিষাক্ত পদার্থ প্রয়োগ করাতে মারাত্মক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়ে থাকে।
বিজ্ঞানী ফ্রয়েন্ডের আবিষকৃত পদ্ধতিতে ব্যবহৃত বিষাক্ত উপাদানের ব্যবহারের দ্বারা রোগপ্রতিরোধ শক্তিকে উদ্দীপিত করে রোগ আরোগ্য করার চেষ্টা ২০ বত্সর যাবত চালু থাকার পর এক সময় পরিত্যক্ত হয়ে যায়। এর প্রধান কারণ ছিল, প্রকৃতি থেকে সংগৃহীত বিষাক্ত উপাদান সমূহকে সুনির্দিষ্ট উত্তেজক (স্পেসিফিক এ্যাডজুভ্যান্ট) হিসাবে ব্যবহার করার কোন নীতিমালা নির্ধারণ করা সম্ভব হয়নি।
বিজ্ঞানী ফ্রয়েন্ডের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হলেও তার গবেষণালব্ধ আবিষ্কার চিকিত্সা বিজ্ঞানীদিগকে একটি তথ্য সরবরাহ করতে সক্ষম হয়েছিল, সেটি হচ্ছে দেহের জন্য বিষাক্ত উপাদান প্রয়োগ করলে দেহের নিজস্ব রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা উদ্দীপিত হয়ে উঠে এবং দেহে নতুনভাবে প্রবিষ্ট বিষকে ধবংস করতে গিয়ে দেহের ভিতর বিদ্যমান অনুরূপ বিষ সমুহকে ধবংস করে ফেলে।
বিজ্ঞানী ফ্রয়েন্ডের এই তথ্যটুকু ব্যবহার করে আমরা প্রাচীনকালে চিকিত্সা পদ্ধতি সমূহে ব্যবহৃত বিষাক্ত উপাদান সমূহের আরোগ্যকারী ক্ষমতার গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা পেতে পারি।
এই ব্যাখ্যাকে ব্যবহার করে ফ্রান্সের চিকিত্সা বিজ্ঞানী ডাঃ ও, এ, জুলিয়ান এবং আমেরিকার ডাঃ গার্থ বোরিক এম,ডি প্রমুখ হোমিওপ্যাথিক চিকিত্সা বিজ্ঞানীগণ মুখে খাইয়ে ব্যবহৃত বিভিন্ন বিষাক্ত ওষুধ জাতীয় উপাদানকে এ্যাডজুভ্যান্ট বা রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতার উত্তেজক হিসাবে আখ্যায়িত করে গিয়েছেন, যা এ্যালোপ্যাথিক চিকিত্সা বিজ্ঞানীদের মনযোগ এবং সমর্থন আদায় করতে ব্যর্থ হয়। এমনকি হোমিওপ্যাথির আরোগ্যের নীতিমালাকে ইমিউনোলজির সাহায্যে ব্যাখ্যা করার তাদের এই প্রচেষ্টাকে হোমিও জগত খুব একটা গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করেছেন বলে কোন প্রমাণ পাওয়া যায়না।
বিজ্ঞানী ফ্রয়েন্ডের উদ্ভাবিত এ্যাডজুভ্যান্ট বা উদ্দীপক দ্বারা ইমিউনোমডুলেশন বা রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থার নিয়ন্ত্রণ করার পদ্ধতির সাহায্যে রোগ চিকিত্সার প্রচেষ্টা কেবলমাত্র ক্যান্সার চিকিত্সার ক্ষেত্রেই পরীক্ষিত হচ্ছে, ক্যান্সার ব্যতীত অসংখ্য ইমিউনোলজিক্যাল ডিজঅর্ডার বা রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থার বিশৃঙ্খলা দ্বারা সৃষ্ট রোগের বেলায় এর ব্যবহার নিয়ে খুব সামান্যই গবেষণা হয়েছে বলে জানা যায়।
বিজ্ঞানীরা ইনজেকশনের সাহায্যে প্রয়োগযোগ্য উপাদান অনুসন্ধান করতে করতে ইন্টারফেরণ, ইন্টারলিউকিন, কলোনী ষ্টিমুলেটিং ফ্যাক্টর (সি,এস,এফ), টিউমার নেক্রোসিস ফ্যাক্টর (টি,এন,এফ), এরিথ্রোপোয়েটিন, থাইমোপোয়েটিন ইত্যাদি সাইটোকাইন জাতীয় উপাদান আবিষ্কার করেন। কিন্তু মানুষের দেহের রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থা এসব উপাদানকে নিজ প্রয়োজন মত তৈরী করে দেহের ভিতর প্রয়োগ করে জীবাণু ধবংস করার উদ্দেশ্যে যে কাজগুলো করে থাকে, বাইরে থেকে ইনজেকশনের দ্বারা প্রয়োগ করে সেই সুফল পাওয়া তো দূরের কথা বরং প্রাণঘাতী ক্ষতিকর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করেছে। ফলে ফ্রয়েন্ডের আবিষ্কৃত পদ্ধতি ইনজেকশনের দ্বারা প্রয়োগযোগ্য শুধুমাত্র গুটিকয়েক উপাদানের মধ্যেই যে সীমাবদ্ধ রয়ে গিয়েছে তা নয় বরং সেগুলো ক্যান্সার চিকিত্সায় আশানুরূপ সুফল দিতেও সক্ষম হয়নি।
অথচ চিকিত্সা বিজ্ঞানের জন্মলগ্ন থেকে আজ পর্যনত্ম ব্যবহৃত মুখে খাওয়ানোর উপযোগী শত শত টক্সিক বা বিষাক্ত প্রাকৃতিক উপাদান যে মানবদেহের ইমিউন সিষ্টেম বা রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থাকে উত্তেজিত করে সুপ্ত এ্যান্টিজেন বা রোগবিষ সমূহকে ধ্বংস করে ইমিউনোলজিক্যাল ডিজঅর্ডার দ্বারা সৃষ্ট শত শত নন-ইনফেকশাস বা অসংক্রামক রোগসমূহকে আরোগ্য করে থাকে, এই মতবাদ যদি আধুনিক চিকিত্সা বিজ্ঞান কর্তৃক স্বীকৃতি লাভ করে তাহলে ফ্রয়েন্ডের পদ্ধতির সঠিক বাস্তবায়ন হতে পারে যা মানবজাতির জন্য বয়ে আনতে পারে অপার কল্যাণ। এই বিষয়টিকে লক্ষ্য করেই আমরা ইমিউনোলজির জ্ঞানের আলোকে প্রাচীন এবং আধুনিক চিকিত্সা পদ্ধতিগুলোকে বিচার বিশ্লেষণ করে একটি লাগসই প্রযুক্তি উদ্ভাবনের চেষ্টা চালিয়েছি যার বিশদ বিবরণ এখানে উপস্থাপন করা হয়েছে।
(খ) দেহকে বিষমুক্ত করে দীর্ঘমেয়াদীভাবে রোগমুক্ত রাখতে ব্যর্থ হয়ে আধুনিক চিকিত্সা বিজ্ঞানের গৃহীত রোগের দ্রুত উপশমের নীতিমালার কারণে সৃষ্ট জটিলতা থেকে মুক্তি লাভের একটি বিকল্প উপায় : একটু খেয়াল করলে দেখা যাবে যে, জ্বর, সর্দি, কাশি, অধিক ঘর্ম নিঃসরণ, শরীর ব্যথা, পাতলা পায়খানা ইত্যাদি রোগলক্ষণগুলো কষ্টদায়ক হলেও এগুলি আসলে বহিরাগত রোগজীবাণু বা ভাইরাসের সঙ্গে দেহের রোগপ্রতিরোধ বাহিনীর লড়াইয়ের ফলে সৃষ্ট কতগুলি প্রতিক্রিয়া মাত্র, যার দ্বারা দেহ বিষমুক্ত হয়ে রোগমুক্ত হয়ে থাকে। আধুনিক চিকিত্সায় ঐ সকল রোগ লক্ষণগুলোকে এলার্জি নাশক এ্যান্টিহিস্টামাইন এবং জ্বর ও ব্যথা নাশক প্যারাসিটামল, পাতলা পায়খানা রোধক ইমোটিল, আমাশয় রোধক মেট্রোনিডাজল (ফ্ল্যাজিল) ইত্যাদি ওষুধ দ্বারা দ্রুত কমিয়ে ফেলা হয়। এছাড়া চিকিত্সা বিজ্ঞানীরা রিসেপ্টর নিয়ন্ত্রণ করে দেহের ভিতর চলমান নানাবিধ জৈব রাসায়নিক প্রক্রিয়াকে প্রয়োজন মত নিয়ন্ত্রণ করার পথ খুঁজে বের করেছেন, যার নাম রিসেপ্টর নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি, যার বিসত্মারিত বিবরণ পূর্ববর্তী অনুচ্ছেদে বর্ণিত হয়েছে।
উপরোক্ত পদ্ধতির দ্বারা অধুনা প্রচলিত প্রতিটি রোগের ওষুধ উদ্ভাবিত এবং ব্যবহৃত হচ্ছে। এসব ওষুধ ক্রমাগত সেবন করতে হয়, কিন্তু এর দ্বারা দেহ বিষমুক্ত হয় না এবং পরিণতিতে রোগের জটিলতা বাড়তেই থাকে। এ ধরণের চিকিত্সার ফলে আমরা দেখতে পাই যে, দেহ আসলে বিষমুক্ত না হয়ে বরং ক্ষুধাহীনতা, বমিভাব ইত্যাদি সহকারে জন্ডিস জাতীয় রোগলক্ষণ প্রকাশ পায়। এর পর সাইটোটঙ্কি রিএ্যাকশন জনিত রক্তশূন্যতা এবং পরে ইমিউন কমপ্লেঙ্ রিএ্যাকশন, অটোইমিউনিটি এবং ইমিউনোডিফিশিয়েন্সি জনিত রোগ লক্ষণগুলো ধারাবাহিক ভাবে সৃষ্টি হতে থাকে। পরিণতিতে দেহে একধরণের দীর্ঘমেয়াদী অসুস্থ ভাব চলতে থাকে যার কোন চিকিত্সা থাকে না।
অথচ প্রাচীন চিকিত্সা পদ্ধতিতে নানাবিধ ভেষজ ব্যবহার করে ঐ সকল রোগ লক্ষণগুলোকে সহ্যসীমার মধ্যে রেখে দেহকে বিষমুক্ত হবার সময় দেওয়া হতো। ইদানীং আধুনিক চিকিত্সা বিজ্ঞানেও ডায়ারিয়া রোগের চিকিত্সায় ওরস্যালাইন প্রয়োগ করার সময় পাতলা পায়খানা বন্ধ করার কোন ওষুধ সেবন করানোর বিষয়ে নিষেধ করা হয়।
তাই দেখা যায় যে, প্রাচীন চিকিত্সা পদ্ধতিতে বিবিধ ভেষজ ওষুধের দ্বারা উপরোক্ত রোগলক্ষণ সমূহকে দূর করলে দেহের রোগলক্ষণ মুক্ত হওয়ার পাশাপাশি এক ধরণের প্রশান্তি লাভ ঘটতো, যা ওরস্যালাইন দ্বারা ডায়ারিয়া মুক্ত হওয়ার পর রোগীরা অনুভব করে থাকেন। আরোগ্যের এই প্রক্রিয়াকে প্রাচীনপস্থী চিকিত্সা বিজ্ঞানীরা ব্যাখ্যা করতে সক্ষম হননি, কারণ তখন ইমিউনোলজি বিজ্ঞানের বিকাশ ঘটেনি, যার দ্বারা আজ সমগ্র বিষয়টির সঠিক ব্যাখ্যা প্রদান করা সম্ভব। দেহকে বিষমুক্ত না করে শুধুমাত্র রোগকষ্ট থেকে উপশমের কারণে দেহ বহিরাগত জীবাণু দ্বারা সৃষ্ট বিষাক্ত পদার্থ (ব্যাকটেরিয়াল এক্সোটক্সিন এবং এন্ডোটক্সিন) এর পূঞ্জীভূত বিষের আখড়ায় পরিণত হয়, এ কথাটা আজ আমরা আধুনিক ইমিউনোলজি বিজ্ঞানের কল্যাণে জানতে পারছি। দেহে সুস্থ শ্বেতকণিকা এবং শ্বেতকণিকার দ্বারা সৃষ্ট এ্যান্টিবডি এবং তার সাহায্যকারী কমপ্লিমেন্ট এর যৌথ বিষনাশক প্রক্রিয়ার ফলে দেহের হিউমরাল ও সেলুলার ক্ষেত্রে যে যৌথ রোগপ্রতিরোধ বাহিনীর আক্রমণাত্মক প্রক্রিয়া বিষমুক্ত করে দেহকে রোগমুক্ত করে রাখে তাকে সাহায্য করার জন্য রোগপ্রতিরোধ বাহিনীর জন্মস্থান মজ্জার শক্তিবৃদ্ধির লক্ষ্যে নিরন্তর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন চিকিত্সা বিজ্ঞানীরা। এই প্রচেষ্টার ফলশ্রুতিতে জন্ম নিয়েছে নানাবিধ সাইটোকাইন জাতীয় উপাদান। কিন্তু অস্থিমজ্জাকে শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে আশানুরূপ সাফল্য অর্জিত হয়নি আজো। ইমিউনোলজি চিকিত্সা বিজ্ঞানীদের এই প্রচেষ্টাকে সাহায্য করার জন্যই আমাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে অল্টারনেটিভ মেডিসিনের প্রাচীন প্রাকৃতিক চিকিত্সার পদ্ধতিকে কাজে লাগানো।
এই উদ্দেশ্যে ইমিউনোলজি বিজ্ঞানের আবিষকৃত ইমিউন সিস্টেম বা রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার উত্তেজক বা এ্যাডজুভ্যান্ট এর সাহায্যে ইমিউনোমডুলেশন বা রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতিকে কার্যকর করার জন্য ব্যয়বহুল এবং জটিল সাইটোকাইনের ব্যবহারের পরিবর্তে প্রাচীন কালের বিষাক্ত ভেষজের ব্যবহারকে একটি নতুন পন্থায় সাজানো হয়েছে, যার দ্বারা দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্রিয়ার হিউমরাল বা দেহরসগত, সেলুলার বা কোষগত এবং মেডুলার বা মজ্জাগত এই তিনটি ক্ষেত্রকেই একই সঙ্গে ক্রিয়াশীল এবং কর্মক্ষম করে তোলা সম্ভব হয়। এই ত্রিমুখী প্রক্রিয়ার দ্বারা আমরা আমাদের উদ্দেশ্যকে সফল করতে সক্ষম হয়েছি। যা এযাবত কোন একটি চিকিত্সা বিজ্ঞানই একক ভাবে অর্জন করতে সক্ষম হয়নি। আমাদের এই নবউদ্ভাবিত পদ্ধতির দ্বারা রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থার বিশৃঙ্খলাজনিত কারণে সৃষ্ট সব ধরণের রোগকে অত্যন্ত সহজে আরোগ্য করা সম্ভব হচ্ছে। এই পদ্ধতির ক্রিয়া একটু ধীরগতি সম্পন্ন হলেও এর ফল দীর্ঘমেয়াদী এবং দেহকে স্বনির্ভর করে তুলতে সক্ষম। চিকিত্সা বিজ্ঞানের স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করতে এই পদ্ধতি অত্যন্ত কম ব্যয়বহুল এবং আদর্শ এবং সম্পূর্ণ পার্শ্বপ্রত্রিক্রিয়া মুক্ত বলে প্রমাণিত হয়েছে এবং ভবিষ্যতে এই পদ্ধতির অধিকতর বিকাশ এবং উন্নয়ন ঘটানো সম্ভব হবে বলে আমরা আশাবাদী। শুধুমাত্র সাময়িক রোগমুক্তি নয়, দেহকে এইচ,এল,এ’র দ্বারা সৃষ্ট রোগপ্রবণতা থেকে মুক্ত করে দীর্ঘমেয়াদীভাবে ওষুধ নির্ভরশীলতা থেকে মুক্ত করার মতো এক অবিশ্বাস্য পদ্ধতির জন্ম হয়েছে।
ফ্রান্সের হোমিও বিজ্ঞানী ডাঃ ও, এ জুলিয়ান কর্তৃক হোমিওপ্যাথি ও ইমিউনোলজি বিজ্ঞানের সমন্বয়ে প্রবর্তিত ডাইনামাইজড মাইক্রো-ইমিউনোথেরাপির অনুসারে এই নবউদ্ভাবিত পদ্ধতির নামকরণ করা হয়েছে ‘হোমিওপ্যাথিক ইমিউনোমডুলেশন’। এই পদ্ধতিতে প্রাচীন ও আধুনিক চিকিত্সা বিজ্ঞানের নীতিমালাকে ব্যবহার করে ইনজেশনের পরিবর্তে বাছাই করা একাধিক উদ্ভিজ্জ, প্রাণিজ, খনিজ, জীবাণুজ, রাসায়নিক এবং তেজস্ক্রিয় উপাদানকে সুস্বাদু করে স্বল্প ও সূক্ষমাত্রায় মুখে খাইয়ে পর্যায়ক্রমিকভাবে প্রয়োগ করে রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থাকে কাজে লাগিয়ে দেহকে বিষমুক্ত করে রোগমুক্ত করার পদ্ধতিকে ব্যবহার করা হয়েছে।
(গ) বিশ্বের সকল চিকিত্সা বিজ্ঞানের সমন্বয়ে গঠিত রোগমুক্ত জীবনের নবতম ফর্মূলা: হোমিওপ্যাথিক ইমিউনোমডুলেশন :-
রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে মানুষের দেহকে টক্সিন বা বিষমুক্ত করে রোগমুক্ত রাখার চেষ্টা চলছে আদিকাল থেকে। ঐ ক্ষমতার প্রধান উত্স হচ্ছে অস্থিমজ্জা, যার কাজ রক্তকণিকার জন্মদান করা। কোন কারণে অস্থিমজ্জার দুর্বলতা সৃষ্টি হলে দুর্বল রক্তকণিকার জন্ম হয় যার ফলে রোগ প্রবণতা বেড়ে যায়। কোন ওষুধের সাহায্যেই অস্থিমজ্জাকে স্থায়ীভাবে সুস্থ এবং সবল করা সম্ভব হচ্ছে না। অস্থিমজ্জার দুর্বলতা দূর করার উপযোগী যে কয়েকটি উপাদান আবিষ্কৃত হয়েছে সেগুলোর পরীক্ষা ক্যান্সারের মত জটিল রোগের ক্ষেত্রেই সীমাবদ্ধ রয়েছে, তাই সেগুলো সাধারণ দীর্ঘমেয়াদী রোগের বেলায় এখনও কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়নি।
অথচ আয়ুর্বেদ, ইউনানী এবং হোমিওপ্যাথির মত প্রাচীন প্রাকৃতিক চিকিত্সা পদ্ধতিতে, এমন কি এ্যান্টিবায়োটিক আবিষ্কারের পূর্ব পর্যন্ত এ্যালোপ্যাথি চিকিত্সা পদ্ধতিতেও যে সকল ওষুধ ব্যবহারের দ্বারা যুগ যুগ ধরে অসংখ্য রোগীকে অনেক জটিল রোগ থেকে বিনা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় এবং দীর্ঘমেয়াদীভাবে মুক্ত রাখা সম্ভব হচ্ছিল সেগুলি ছিল সবই বিষাক্ত বা টক্সিক ওষুধ।
তখন কিন্তু বিজ্ঞানীরা জানতেন না যে, কেন রোগ চিকিত্সার জন্য বিষাক্ত উপাদান ব্যবহার করা হতো। তাই ইমিউনোলজি বিজ্ঞানের বিকাশ লাভের পূর্বে আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে ‘বিষে বিষনাশ’ এবং হোমিওপ্যাথিতে ‘সমবিধান’ বা ‘লাইক কিওরস লাইক’ ইত্যাদি হাইপোথেটিক্যাল বা কাল্পনিক মতবাদের জন্ম হয়েছিল এবং এ্যালোপ্যাথি বিজ্ঞানীরা ওষুধের প্রতিক্রিয়াকে জীবাণু ধ্বংসকারী (সাইটোটক্সিক) ক্রিয়া হিসাবেই মনে করছিলেন।
আসলে ঐ সময় সকল চিকিত্সা পদ্ধতিতে ব্যবহৃত টক্সিক বা বিষাক্ত পদার্থ যে রোগপ্রতিরোধ শক্তি (ইমিউন সিস্টেম) কে উত্তেজিত করে ইমিউন টলারেন্সের কারণে দেহে আশ্রয়প্রাপ্ত রোগ সৃষ্টিকারী রোগবিষ সমূহকে ধবংস করে রোগমুক্ত করার জন্য ব্যবহৃত হত, সে কথাটির প্রমাণ পেতে বিজ্ঞানীদেরকে ১৯৪২ সালে বিজ্ঞানী ফ্রয়েন্ডের এ্যাডজুভ্যান্ট বা উদ্দীপক উপাদানের সাহায্যে ইউমিউনোপোটেনসিয়েশন বা রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতার উত্তেজিতকরণ পদ্ধতির আবিষ্কার হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হত।
কিন্তু তার আগেই এ্যালোপ্যাথিক চিকিত্সা বিজ্ঞানীরা জীবাণুনাশক এ্যান্টিবায়োটিক এবং রোগপ্রতিরোধক টিকাদান পদ্ধতি আবিষ্কারের পাশাপাশি রিসেপ্টর নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতির কল্যাণে মানুষকে অতি দ্রুত রোগকষ্ট থেকে মুক্তির সহজ পথের সন্ধান দিতে পেরেছিলেন। তাই ফ্রয়েন্ডের আবিষ্কারলব্ধ দেহকে বিষমুক্ত করার জটিল, অনিশ্চিত এবং রোগীদের জন্য কষ্টদায়ক পথের চাইতে বিজ্ঞানীরা নিশ্চিত সাইটোকাইনের পথের দিকে এগিয়ে চলেছিলেন।
কিন্তু বাইরে থেকে কৃত্রিমভাবে সরবরাহকৃত সাইটোকাইনের পথ নিশ্চিত সাফল্যের মুখ দেখাতে প্রায় ব্যর্থ হয়ে যাওয়ায় বিজ্ঞানীরা রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতার বিশৃঙ্খলার কারণে সৃষ্ট রোগসমূহের নিয়ন্ত্রণের জন্য ষ্টেরয়েডের সাহায্যে ইমিউনোসাপ্রেশন বা রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা অবদমনের পথকেই আকড়ে ধরলেন। এযাবতকাল অর্গান ট্রান্সপ্লানটেশন বা অঙ্গসংস্থাপনের প্রয়োজনে ব্যবহৃত অবদমনের পথই বর্তমানে সর্বজনপ্রিয় পথ হিসাবে স্বীকৃতি পেল।
এছাড়া রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতার দুর্বলতা বা ইমিউনোডিফিশিয়েন্সির কারণে সৃষ্ট রোগের বেলায় ইদানীং বাইরে থেকে ইমিউনোগ্লোবিউলিন (আই জি) সরবরাহ করে রোগসমূহকে নিয়ন্ত্রণ করতে শুরু করেছেন। কোন কোন ক্ষেত্রে দু’ধরনের ওষুধই পাশাপাশি ব্যবহার করা হচ্ছে। ষ্টেরয়েডের দ্বারা রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতাকে কমানো হচ্ছে এবং পাশাপাশি ইমিউনোগ্লোবিউলিন (আই জি) দিয়ে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো হচ্ছে।
কিন্তু দেহকে বিষমুক্ত না করে ক্রমাগত দেহের রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থাকে ওষুধের দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করার ফলে ইমিউনোলজি বিজ্ঞান বর্ণিত (১) হাইপারসেন্সিটিভিটি, (২) সাইটোটক্সিসিটি, (৩) ইমিউন কমপ্লেক্সিটি, (৪) অটোইমিউনিটি এবং (৫) ইমিউনোডিফিসিয়েন্সি, এই ৫টি প্রতিক্রিয়ার কারণে সৃষ্ট (১) এ্যালার্জি (২) রক্তশূন্যতা (৩) একজিমা, এ্যাজমা, কুষ্ঠ ইত্যাদি রোগ, (৪) ডায়াবেটিস (৫) ক্রমাগত রোগাক্রান্ত থাকা ইত্যাদি রোগগুলো পর্যায়ক্রমে মানুষকে আক্রমণ করতে থাকে এবং ধীরে ধীরে এক সময় যখন আর ঐ সকল ওষুধগুলো কাজ করতে ব্যর্থ হয়ে যায় এবং দেহের প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে অকার্যকর করে রাখার সুযোগে বহিরাগত ভাইরাসেরা বিনা বাধায় দেহ কোষের ডি,এন,এ’র পরিবর্তন সাধন করে ভাইরাল ডি,এন,এ তে রূপান্তরিত করে ফেলে, তখন সেই কোষগুলোই হয় ক্যান্সার কোষ, যার বৃদ্ধি ঘটতে থাকে অবলীলাক্রমে এবং সুস্থ মানব দেহটি ক্যান্সার কোষের প্রভাবে প্রভাবিত হয়ে আরোগ্যের বাইরে চলে যায়। সে সময় চিকিত্সা বিজ্ঞানীরা ক্যান্সার কোষ ধবংস করার জন্য কেমোথেরাপি এবং রেডিওথেরাপি প্রয়োগ করেন যার দ্বারা ক্যান্সার কোষ ধ্বংস হবার পাশাপশি অবশিষ্ট সুস্থ কোষগুলোও ধবংসপ্রাপ্ত হয়ে যায় এবং রক্ত কণিকা তৈরী করার প্রধান কেন্দ্রস্থল অস্থিমজ্জারও ধবংস সাধিত হয়। ফলে ক্যান্সার আক্রান্ত ব্যক্তি সাময়িকভাবে কিছুদিন সুস্থ থাকার পর পুনরায় রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতাহীনতার কারণে ক্যান্সারেই মারা পড়ে ।